logo

Select Sidearea

Populate the sidearea with useful widgets. It’s simple to add images, categories, latest post, social media icon links, tag clouds, and more.
hello@youremail.com
+1234567890

রচনা প্রতিযোগিতা

‘রচনা প্রতিযোগিতা’

 

নিম্ন লিখিত যে কোন একজন মহান নেতা সম্পর্কে রচনা লিখতে হবে-

 

১) সৈয়দ নজরুল ইসলাম
২) তাজউদ্দীন আহমদ
৩) ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ মনসুর আলী
৪) এ,এইচ,এম কামারুজ্জামান
৫) জননেত্রী শেখ হাসিনা

 

বঙ্গবন্ধুর পঞ্চনক্ষত্র’ বইয়ের জন্য সৃজনশীল লেখনি আহ্বান :

 

১৯৭৫ উত্তর বাংলার আকাশে সৃষ্ট ইতিহাসের কালোমেঘ, তরুণ প্রজন্মের মনোজগৎ থেকে অপসারণের লক্ষ্যে, সমাজ গবেষণা ও সংস্কার কেন্দ্র, রাজশাহী কর্তৃক , ‘বঙ্গবন্ধুর পঞ্চনক্ষত্র‘ নামে একটি বই প্রকাশ করা হবে।

 

বইটিতে বঙ্গবন্ধু, জাতীয় চার নেতা এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার জীবন ও কর্মের ঐতিহাসিক মূল্যায়ন প্রতিফলিত হবে।

 

বিখ্যাতদের পাশাপাশি এই মহান কর্মযজ্ঞে তরুণদের সুযোগ করে দিতে আগ্রহী তরুণদের নিকট থেকে সৃজনশীল প্রবন্ধ/রচনা আহবান করা হচ্ছে।

 

বয়সসীমা: যেহেতু এটি একটি গবেষণা কর্মের অংশ তাই তরুণ লেখকদের সর্বোচ্চ বয়স হবে ৩৫ বছর।

 

ব্যতিক্রম : বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার পরিবারের সদস্যদের ক্ষেত্রে বয়সসীমা প্রযোজ্য নয়। অর্থাৎ উল্লিখিত মহান নেতাদের পরিবারের কোন সদস্য লেখা পাঠালে বয়সসীমা শিথিলযোগ্য।

 

নীতিমালা :
১) লেখাটি সম্পূর্ণরূপে নিজের হতে হবে।
২) লেখাটি নিজের নয় হিসেবে প্রতীয়মান হলে বাতিল করা হবে।
৩) প্রবন্ধটি বইটিতে ছাপা হওয়ার পরে নকল হিসেবে প্রতীয়মান হলে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
৪) প্রবন্ধটি হতে হবে সংক্ষিপ্ত। ২/৩ পৃষ্ঠার মধ্যে লিখতে হবে। ( A4 সাইজ কাগজে ১৬ ফ্রন্টে লিখতে হবে।)
৫) বইয়ে ছাপানোর যোগ্য মানসম্মত লেখা পাওয়া গেলে, ১ম ৩ জনের প্রবন্ধ বইটিতে স্থান দেয়া হবে।

 

দৃষ্টিআকর্ষণ:
মানসম্মত ১০জন লেখককে সম্মানিত ও পুরস্কৃত করা হবে।

১ম পুরস্কার :১০ হাজার টাকা
২য় পুরস্কার :৫ হাজার টাকা
৩য় পুরস্কার :৩ হাজার টাকা
৪র্থ থেকে ১০ম পুরস্কার : ১ হাজার টাকা(প্রতিজন)

 

শেষ তারিখ: ১০/০৯/২০২০

১ পৃষ্ঠার সংক্ষিপ্ত C.V সহ লেখাটি নিচের ঠিকানায় পাঠাতে হবে: info@research-reform.org

-: সমাজ সংস্কারে ইতিবাচক লেখনির নীতিমালা :-

ভলটেয়ার, রুশো ও মন্টেস্কুদের মতো দার্শনিকগণ, আজ থেকে ২৩০ বছর আগের সমাজ কাঠামোয়, লেখনির মাধ্যমে ফরাসি বিপ্লব সংগঠিত করেছিলেন। তাই তথ্য-প্রযুক্তির বিকশিত এই যুগে, লেখনির মাধ্যমে সমাজ পরিবর্তন অবশ্যই সম্ভব; কিন্তু বিষয়টি হতে হবে অহিংস ও গঠনমূলক পন্থায়।

সমাজের ক্ষমতা কাঠামোয় সবচেয়ে দূর্বলস্তরে অবস্থান করছে শিশু ও নারী। তাই শিশু ও নারীর প্রতি সহিংসতা, সমাজে সবচেয়ে বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে। যেমন: সম্প্রতি মেজর সিনহা হত্যাকান্ডসহ বড়-বড় অপরাধ কর্মের মূল অপরাধীকে আড়াল করতে, নারীকে নগ্ন করে অপরাধীর ঢাল হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। অসচেতনতার কারণে, কিছু তরুণ না বুঝেই, বিষয়টিকে ভাইরাল করে অপরাধীকে আড়ালে যেতে সহায়তা করছে। কিন্তু এর বিপরীত বিষয়টি যদি ভাইরাল হয়, তবে কিন্তু অপরাধী পার পাবে না। এতে করে অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত হবে এবং পর্যায়ক্রমে অপরাধ প্রবণতা হ্রাস পেয়ে, সমাজে ইতিবাচক পরিবর্তন সূচিত হবে।

যেমন: একজন দূর্বলতম ধর্ষিতা বোনের পক্ষে, যদি ১০ লক্ষ মানুষ সম্মিলিতভাবে লেখালেখি করেন, তবে সেই ধর্ষিতা কি রক্ষা পাবেন না?

যাদের লেখনি শক্তি আছে, তাদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান-
আপনাদের চারপাশে সংঘটিত নানা অন্যায় ও অসঙ্গতি নিয়ে আমাদের ফেসবুক পেজে লিখুন।
আপনার-আমার মতো লক্ষ-লক্ষ লোকের লেখনির সম্মিলিত শক্তিতে, শিশুর জন্য বাসযোগ্য সমাজ অবশ্যই বিনির্মাণ করা সম্ভব বলে আমরা দৃঢভাবে বিশ্বাস করি।

তাই, আমাদের ফেসবুক পেজের পোস্টগুলির সর্বোচ্চ শেয়ারকারী ১০ জনকে, এবং ১০ জন শ্রেষ্ঠ লেখককে, প্রতি মাসে পুরস্কৃত ও সম্মানিত করা হবে।
লেখাটি সর্বোচ্চ ৫০০শব্দের মধ্যে সীমিত রাখতে হবে।
যত সংক্ষেপে মূলভাব প্রকাশ পাবে ততই ভাল হিসেবে বিবেচিত হবে।

 

Facebook: facebook.com/researchreform

e-mail: info@research-reform.org

নীতিমালার যেকোন আপডেট পাওয়ার লিংক: research-reform.org/career